fbpx

ফেসবুক বিজ্ঞাপনে সফলতা অর্জনের দ্রুত ও কার্যকর পদ্ধতি

Share This Post

Share on facebook
Share on linkedin
Share on twitter
Share on email
Best Digital marketing Agency in Dhaka

ফেসবুকের সিইও মার্ক জুকারবার্গ জানিয়েছেন যে প্রায় ২.২ বিলিয়নেরও বেশি মানুষ প্রতি মাসে ফেসবুক ব্যবহার করে। প্রতিদিন এটি ব্যবহার করে প্রায় 1.5 বিলিয়ন মানুষ। কাজেই যেসব ছোট ব্যবসায়ীরা ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দিচ্ছেন না তারা বিশ্বের জনসংখ্যার প্রায় এক তৃতীয়াংশের সাথে যোগাযোগ স্থাপনের সুযোগটি হারাচ্ছেন।

২০১৬ সালের একটি সমীক্ষায় দেখা যায় যে সোশ্যাল মিডিয়ায় যারা পন্য বিক্রয় করে তাদের ৯৫ % ই ফেসবুককে বেছে নেয়। কারন তাদের ক্ষুদ্র ব্যবসার জন্য ফেসবুক সবথেকে কার্যকরী মাধ্যম।

আপনি কি ফেসবুকে ব্যবসার জন্য বিজ্ঞাপন দিতে চান? বিজ্ঞাপন দেয়ার প্রক্রিয়া দেখে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। এই গাইডটির মাধ্যমে সহজেই বুঝতে পারবেন ফেসবুকে কিভাবে এ্যাড দিলে সহজেই আপনি লক্ষ্যে পৌছতে পারবেন।

🎯আপনার লক্ষ্য স্থির করুন

ঠিক কিসের আশায় আপনি ফেসবুকে এ্যাড দিতে চাচ্ছেন? হ্যা, আপনি আসলে ব্যবসায়ের পরিধি বৃদ্ধির আশা করছেন। কিন্তু আপনি কিভাবে সফলতা অর্জন করতে পারবেন? প্রথমেই আপনাকে নির্দিষ্টভাবে একটা লক্ষ্য নির্ধারণ করে নিতে হবে। প্রতিবার ফেসবুকে এ্যাড দেয়ার আগে এই বিষয়গুলা নিজেকে প্রশ্ন করুন-

  • আমি বিশেষত কোন পন্য বা সেবা কে প্রচার করছি?
  • আমি কাদের কে উদ্দেশ্য করে প্রচার করছি?
  • তারা কিভাবে পন্যটি ব্যবহার করবে?
  • পন্যের ব্যপারে তাদের কি কি আপত্তি থাকতে পারে?
  • এই এ্যাড ক্যাম্পেইনটির লক্ষ্য কি?

আপনি কি অর্জন করতে চান সেই লক্ষ্য টি যদি না থাকে তবে আপনি শক্তিশালী বিজ্ঞাপন তৈরি করতে পারবেন না। প্রথমে আপনার পরিকল্পনাটি তৈরি করুন।

আপনি এখান থেকে যেকোন একটি লক্ষ্য পছন্দ করে সেটা অর্জনের জন্য এ্যাড ক্যাম্পেইন শুরু করতে পারেন-

  • ব্র্যান্ডের পরিচিতি হওয়া
  • রিচ হওয়া
  • ট্রাফিক পাওয়া
  • এনগেজমেন্ট হওয়া
  • এ্যাপ ইনস্টল হওয়া
  • ভিডিও ভিউস হওয়া
  • লিড জেনারেশন হওয়া
  • মেসেজ পাওয়া
  • কনভারসেশন হওয়া
  • বিক্রয় হওয়া
  • স্টোর ভিজিট হওয়া

👨‍👩‍👦আপনার অডিয়েন্স খুজে বের করুন

যারা আপনার বিজ্ঞাপনটি দেখবে তারাই হচ্ছে অডিয়েন্স। মনে করুন আপনি ছেলেদের বিভিন্ন কসমেটিক্স সামগ্রী বিক্রয় করবেন। তাহলে অবশ্যই আপনার কাস্টমার হবে ছেলে এবং তার বয়স হবে ১৫-৩৫। তাহলে আপনার এ্যাড এদেরকে দেখালেই পন্য বিক্রয় হবে। এরাই আপনার এ্যাডের অডিয়েন্স। এই অডিয়েন্স কারা হবে আপনি নিজেই ঠিক করে নিতে পারবেন। এছাড়া ফেসবুক পিক্সেল এর সাহায্যে আপনার সাইটের ভিজিটরদের কেও তাদের পছন্দের পন্যের এ্যাড দেখাতে পারবেন।

ফেসবুক বিজ্ঞাপন আপনাকে আপনার বর্তমান গ্রাহকদের সাথে কানেক্টেড রাখে এবং সম্পূর্ণ নতুন গ্রাহকদের কাছে পৌঁছে দিতে পারে যারা আপনার পণ্যের প্রতি আগ্রহী।

অডিয়েন্স কত ভাবে সেট করতে পারবেন তা বোঝার জন্য নিচে লক্ষ করুন

  • কাস্টম অডিয়েন্স : যারা আপনার সাইট, আপনার ফেসবুক বা আপনার ইনস্টাগ্রামের ব্যবসায়িক প্রোফাইলে কিছু নির্দিষ্ট এ্যাকশন নিয়েছে।
  • লুক-এলাইক অডিয়েন্স : যারা অন্যান্য ব্যবসায়িক ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে আপনার কাস্টম অডিয়েন্স দের মতই বিভিন্ন এ্যাকশন নেয়।
  • ডেমোগ্রাফিক বেসড অডিয়েন্স : নির্দিষ্ট পরিমান জন সমষ্টি ,যেমন ১০০০ জন,৫০০০ জন।
  • লোকেশন বেসড অডিয়েন্স : লোকেশন অনুযায়ী টার্গেট করা,যেমন শুধু ঢাকার লোক দেরকে এ্যাড দেখাবে।
  • বিহ্যাভিয়ার বেসড অডিয়েন্স : যারা নির্দিষ্ট কোন পন্যের ব্যাপারে পূর্বেও আগ্রহ দেখিয়েছে।
  • কানেক্টিং বেসড অডিয়েন্স : অর্থাৎ যারা আপনার সাইটের সাথে কানেক্ট আছে অথবা যারা কানেক্ট নাই।

 

👌এ্যাডের ধরন ঠিক করুন

ব্যবসায়ের জন্য ফেসবুক বিভিন্ন ধরনের এ্যাড দেয়ার সুযোগ দেয়। আপনি কি ধরনের এ্যাড দিতে চান এটা নির্ভর করে আপনি কি লক্ষ্য অর্জন করতে চান তার ওপর।

  • ওয়েবসাইটের ট্রাফিক বা লিড বৃদ্ধি করার জন্য লিংক ক্লিকের এ্যাড, ভিডিও এ্যাড অথবা পেজের পোস্ট বুস্ট করার এ্যাড ব্যবহার করুন।
  • পন্য বিক্রয়ের জন্য ক্যারোসল এ্যাড, ডায়নামিক প্রোডাক্ট এ্যাড, ফেসবুক লিড এ্যাড, ক্যানভাস এ্যাড, এবং কালেকশন এ্যাডের মধ্যে যে কোনটি ব্যবহার করুন।
  • ফেসবুক পেজের লাইক বা এনগেজমেন্ট বাড়ানোর জন্য ফেসবুক পেজ লাইক এ্যাড এবং পেজের ভিডিও,ফটো বা পোস্টের এ্যাড ব্যবহার করুন।
  • এ্যাপ ইনস্টল বাড়ানোর জন্য মোবাইল, ডেস্কটপ এবং ইনস্টাগ্রাম এর মোবাইল এ্যাপ এ্যাড ব্যবহার করুন।
  • কোন ইভেন্টে উপস্থিতির হার বাড়াতে বা দোকানে ভিজিটর বাড়াতে ইভেন্ট এ্যাড, অফার ক্লেইম এ্যাড এবং লোকাল এ্যাওয়ারনেস এ্যাড ব্যবহার করুন।
  • সম্ভাব্য ক্রেতাদের থেকে মেসেজ পাওয়ার জন্য মেসেঞ্জার এ্যাড বা ফেসবুক পেজ মেসেজ এ্যাড ব্যবহার করুন।

💰বাজেট নির্ধারণ করুন

এ্যাড ক্যাম্পেইন শুরু করার পূর্বে আপনার জানা দরকার কিভাবে ও কত টাকা আপনি খরচ করবেন। ফেসবুক এক্ষেত্রে দুইটি সুযোগ দেয়, দৈনিক বাজেট এবং লাইফটাইম বাজেট। দৈনিক বাজেটের ক্ষেত্রে ক্যাম্পেইন চলাকালীন প্রতিদিন কত টাকা খরচ করতে চান এটা আপনি নির্দিষ্ট করে দিতে পারবেন। চাইলে প্রতিদিন এটা পরিবর্তন বা ক্যান্সেল ও করতে পারবেন। কিন্তু লাইফটাইম বাজেটের ক্ষেত্রে আপনি পুরা ক্যাম্পেইন চলাকালীন কত টাকা খরচ করতে চান সেটাই শুধু নির্দিষ্ট করে দিতে পারবেন। ফেসবুক সেই টাকাকে প্রতিদিন তাদের মত করে খরচ করবে।

তাই প্রথম দিকে দৈনিক বাজেট সেট করাই আপনার জন্য সেরা উপায়। এতে করে আপনার কত টাকা খরচ হচ্ছে, তাতে কতটুকু কাজ হচ্ছে আপনি আরও ভালোভাবে বুঝতে পারবেন। আপনার এ্যাড কত জনের কাছে পৌছচ্ছে, আপনার টার্গেট কতটুকু পূরন করছে এসব পর্যালোচনা করে খরচটা বাড়াতে বা কমাতে পারবেন।

✔️অগ্রগতি চেক করুন

একটা এ্যাড পাবলিশ করেই কিন্তু আপনার কাজ শেষ নয়। আপনি অবশ্যই চাইবেন এ্যাড টি ভালো কাজ করুক। কাঙ্খিত ফলাফল না পেলে আপনি হয়ত চাইবেন এ্যাডের ধরন, আপনার অডিয়েন্স ইত্যাদির পরিবর্তন করতে।  তো কিভাবে জানবেন এ্যাডটি কতটুকু কাজ করছে, টার্গেট কতটা পূরন করছে? প্রতি ক্লিকের জন্য কত টাকা খরচ হচ্ছে?

উত্তর হচ্ছে, ফেসবুক এ্যাড ম্যানেজার। ফেসবুক এ্যাড ম্যানেজারের মাধ্যমে আপনি আপনার এ্যাড ক্যাম্পেইনের ব্যাপারে সকল প্রয়োজনীয় তথ্য পেয়ে যাবেন। এই তথ্য গুলো বিশ্লেষণ করে সহজেই আপনি বুঝতে পারবেন এ্যাড ঠিক ভাবে কাজ করছে কিনা। ঠিক ভাবে কাজ না করলে সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন এ্যাড এ কি পরিবর্তন আনতে হবে।

আপনার ক্ষুদ্র ব্যবসা কে বিশাল এই প্লাটফর্মের মাধ্যমে তুলে ধরুন লক্ষ লক্ষ মানুষের সামনে। ব্যবসার প্রচারের জন্য এত সহজ ও কার্যকরী সুযোগ সম্ভবত আর একটিও নেই। সময় এখনই, সফলতার সিড়িতে আরও এক ধাপ এগিয়ে যেতে এই সুযোগ কে এখনই কাজে লাগানো উচিত।

ফ্রি ডিজিটাল মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজীবুক

ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনার ব্যবসাকে আরো স্মার্ট আর দ্রুতগতিতে বাড়াতে চাইলে আপনার প্রয়োজন একটি ডিজিটাল মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজী।

আমাদের এই বইটি থেকে আপনি জেনে নিতে পারেন কিভাবে আপনার ব্যবসার জন্য একটি কার্যকর ডিজিটাল মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজী দাড়া করাবেন।

আরো পড়ুন

blogs

ফেসবুক বিজ্ঞাপনে সফলতা অর্জনের দ্রুত ও কার্যকর পদ্ধতি

ফেসবুকের সিইও মার্ক জুকারবার্গ জানিয়েছেন যে প্রায় ২.২ বিলিয়নেরও বেশি মানুষ প্রতি মাসে ফেসবুক ব্যবহার করে। প্রতিদিন এটি ব্যবহার করে প্রায় 1.5 বিলিয়ন মানুষ। কাজেই যেসব

blogs

ব্যাবসায়িক ওয়েবসাইটের উন্নয়নের জন্য সঠিক টুলস নির্বাচন

ব্যবসার জন্য একটি ওয়েবসাইটের গুরুত্ব বা প্রয়োজনীয়তা কতটুকু তা সকলেই জানে। তাই ব্যবসার শুরু থেকেই প্রায় সকলের এ বিষয়ে একটি প্ল্যান থাকে এবং ওয়েবসাইট প্রস্তুত

ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে স্মার্টলি ব্যবসা বাড়াতে চান?

ফ্রি কন্সাল্টেশন সেশনের জন্যে যোগাযোগ করুন আজই

Close Menu

ডিজিটাল মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজীবুক

এই বইটি আপনাকে সাহায্য করবে আপনার ব্যবসার জন্যে একটি কার্যকর ডিজিটাল মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজী তৈরী করতে।
ফ্রি ডাউনলোড করতে আপনার নাম, ফোন নাম্বার এবং ইমেইল দিন।